হোম আন্তর্জাতিক চলে গেলেন না ফেরার দেশে রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জী

চলে গেলেন না ফেরার দেশে রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জী

কর্তৃক
০ মন্তব্য 607 ভিউজ

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

উপমহাদেশের বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ ও ভারতের সাবেক সফল রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জীর মৃত্যু হয়েছে গেছেন। আজ সোমবার বিকালে নয়াদিল্লীর আর্মি রিসার্চ অ্যান্ড রেফারাল হাসপাতালে তিনি চিকিৎসাধীন অবস্তায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল প্রায় ৮৫ বছর। সন্ধায় প্রণব মুখার্জির ছেলে অভিজিৎ মুখার্জি গনমাধ্যমে এ খবর নিশ্চিত করেছেন। বিকেল পৌনে ৬টায় এক টুইটার বার্তায় অভিজিৎ মুখার্জি লেখেন, ভারাক্রান্ত হৃদয়ে জানাচ্ছি যে, আমার বাবা প্রণব মুখার্জি এই মাত্র দিল্লির আর্মি হসপিটাল রিসার্চ অ্যান্ড রেফারালে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেছেন।

ব্রিটিশ শাসন থেকে স্বাধীনতা পাওয়ার পর ভারতের রাজনীতিতে সফল বাঙালি নেতা ছিলেন প্রণব মুখার্জি বলে জানা যায় ।

২০১২ সালে ভারতের ইতিহাসে প্রথম বাঙালি হিসেবে দেশটির রাষ্ট্রপতি হন তিনি। বর্তমানে ক্ষমতাসীন বিজেপির সময়ে ২০১৪ সালে তার মেয়াদ শেষ হয়।

ইতিপূর্বে ২০০৯ সাল থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত কংগ্রেস সরকারের অর্থমন্ত্রী ছিলেন প্রণব মুখার্জি। ১৯৮২-৮৪ সালেও তিনি ছিলেন ভারতের অর্থমন্ত্রী। মহারাষ্ট্রের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর বিশ্বাসযোগ্য সহকর্মী হয়ে উঠা প্রণব মুখার্জি বিভিন্ন সময়ে দেশটির পররাষ্ট্র, প্রতিরক্ষা, যোগাযোগ, রাজস্বের মতো গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালনের জন্য কৃতিত্বের অধিকারী। গত ৯ আগস্ট রাতে দিল্লির নিজ বাড়িতে বাথরুমে পড়ে গিয়েছিলেন প্রণব মুখার্জি। পরদিন সকাল থেকে তার স্নায়ুঘটিত কিছু সমস্যা দেখা দেয়। বাঁ হাত নাড়াচাড়া করতে সমস্যা হচ্ছিল তার। চিকিৎসকদের পরামর্শে দ্রুত ভর্তি করা হয় হাসপাতালে।

হাসপাতালে এমআরআই স্ক্যানে দেখা যায়, তার মাথার ভেতর রক্ত জমাট বেঁধে রয়েছে। জরুরি ভিত্তিতে অস্ত্রোপচার করা হলেও তার অবস্থার উন্নতি হয়নি। ১৩ আগস্ট থেকে তিনি গভীর কোমায় চলে যান।

প্রণব মুখার্জি দীর্ঘ দিন ধরে ডায়াবেটিসে ভুগছিলেন। ১০ আগস্ট হাসপাতালে ভর্তির পর তার করোনাভাইরাস (কোভিট-১৯) ধরা পড়ে। সেই অবস্থাতেই ওই দিন রাতে দীর্ঘ অস্ত্রোপচার হয়। তারপর থেকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছিল প্রণব মুখার্জিকে।

অস্ত্রোপচারের আগে নিজের করোনা সংক্রমিত হওয়ার খবর টুইট করে জানিয়েছিলেন তিনিই। সেটাই ছিল প্রণব মুখার্জির শেষ টুইট। এরপর ছেলে অভিজিৎ মুখার্জি তার শারীরিক অবস্থার নিয়মিত আপডেট জানিয়ে আসছিলেন টুইটে।

সম্পর্কিত পোস্ট

মতামত দিন