হোম জাতীয় ‘এমপি আনার খুন হলে লাশ চাই, নিখোঁজ থাকলে সন্ধান চাই’

‘এমপি আনার খুন হলে লাশ চাই, নিখোঁজ থাকলে সন্ধান চাই’

কর্তৃক Editor
০ মন্তব্য 15 ভিউজ

জাতীয় ডেস্ক:

ঝিনাইদহ-৪ আসনের এমপি আনোয়ারুল আজিম আনার নিখোঁজ, না খুন হয়েছেন? এ ধরনের প্রশ্ন দেখা দিয়েছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মী ও স্বজনদের মধ্যে। তারা এমপি আনার খুন হলে তার মরদেহ অথবা নিখোঁজ হলে তার সন্ধান চান।

এ দাবিতে ঘোষণা করা হয়েছে মানববন্ধন কর্মসূচির। বুধবার (২৯ মে) কালীগঞ্জ উপজেলার বারোবাজারে ৩ ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে এই মানববন্ধনের ডাক দেয়া হয়েছে। এছাড়া বৃহস্পতিবার স্থানীয় ব্যবসায়ী সমিতিও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করবে বলে জানা গেছে।

মঙ্গলবার (২৮ মে) এমপি আনারের বাসার সামনে দলীয় নেতাকর্মী এবং স্বজনদের তেমন একটা দেখা যায়নি। আনারকন্যা ডরিনও সাংবাদিকদের সামনে আসেননি।

বারোবাজার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘আমরা বারোবাজার ইউনিয়ন পরিষদ, রাখালগাছি ইউনিয়ন পরিষদ ও কাষ্টভাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করেছি। আমাদের দাবি এমপি আনার খুন হলে তার লাশ চাই। যদি এমপি নিখোঁজ থাকেন তাহলে তার সন্ধান চাই।’

তিনি বলেন, ‘একজন ৩ বারের এমপি এভাবে গায়েব হয়ে যেতে পারেন না। আমাদেরকে তার কোন একটা আলামত দিতে হবে।’

অন্যদিকে একই দাবিতে বৃহস্পতিবার কালীগঞ্জ উপজেলা ব্যবসায়ী সমিতির উদ্যোগে মানববন্ধন কর্মসূচির ডাক দেয়া হয়েছে।

ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ইমদাদুল ইসলাম ইনতা বলেন, ‘এমপি আনার আমাদের ব্যবসায়ী সমিতির প্রধান উপদেষ্টা ছিলেন। আমরা তার নিহতের প্রতিবাদ, হত্যাকারীদের গ্রেফতারসহ মাস্টারমাইন্ডকে গ্রেফতারের দাবি এবং এমপি হত্যা নিয়ে যে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে তা পরিষ্কার করার দাবিতে বৃহস্পতিবার কর্মসূচি দিয়েছি।’

এদিকে মঙ্গলবার এমপি আনারের বাসার সামনে তেমন একটা লোকজন দেখা যায়নি। দলীয় নেতাকর্মীরা উপজেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে উপস্থিত ছিলেন। তাদের মধ্যে কালীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র আশরাফুল আলম আশরাফ বলেন, “বিরূপ আবহাওয়ার কারণে আমরা দলীয় কর্মসূচি বন্ধ রেখেছি। শনিবার থেকে আমরা দলীয় কর্মসূচির ডাক দেবো। আমাদেরও একই দাবি ‘এমপি আনার খুন হলে লাশ চাই, নিখোঁজ থাকলে সন্ধান চাই’।”

উল্লেখ্য, গত ১২ মে চিকিৎসার জন্য ভারতে গিয়েছিলেন ঝিনাইদহ ৪ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ারুল আজিম আনার। এরপর খবর আসে, ১৩ মে তাকে কৌশলে ডেকে নিয়ে কলকাতার নিউটাউন এলাকার একটি আবাসিক ভবনে হত্যা করে লাশ টুকরো টুকরো করে ট্রলি ব্যাগে নিয়ে বিভিন্ন স্থানে ফেলে দিয়েছে হত্যাকারীরা। এ ঘটনায় ভারত ও বাংলাদেশে ৬ জন গ্রেফতার হলেও মূল পরিকল্পনাকারী আক্তারুজ্জামান শাহীন যুক্তরাষ্ট্রে পলাতক রয়েছে। আর হত্যা ঘোষিত হওয়ার কয়েকদিন পেরিয়ে গেলেও তার লাশের কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি।

সম্পর্কিত পোস্ট

মতামত দিন